E-cab members with Junaid Ahmed Polok

আমরা ই-ক্যাব থেকে আমাদের ইসি কমিটির নেতৃবৃন্দ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক-এর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হই। আমরা মাননীয় প্রতিমন্ত্রীকে ই-কমার্স খাতের বিভিন্ন সমস্যা সম্পর্কে অবহিত করি এবং এসব সমস্যা সমাধানে তাঁর এবং আইসিটি মন্ত্রনালয়ের সহযোগিতা কামনা করি।
জনাব পলক আমাদের সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন এবং বলেন যে ই-কমার্স সেক্টরের সকল সমস্যা সমাধানে ও এ খাতের উন্নয়নে তাঁর মন্ত্রনালয় আন্তরিক ভাবে কাজ করে যাবে।
আমরা ই-ক্যাব এর প্রতিষ্ঠা, কার্যক্রম, আমাদের সদস্যদের সম্পর্কে, ই-ক্যাবের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ইত্যাদি নিয়ে মাননীয় প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করি। তিনি ধৈর্য ধরে ও মনোযোগের সঙ্গে আমাদের সব কথা শোনেন। আমাদের বেশ কিছু ভাল পরামর্শ দেন এবং ই-কমার্স যাতে শুধু ঢাকার বাইরে সীমাবদ্ধ না থেকে ঢাকার বাইরে ছড়িয়ে পরে সে ব্যপারে তাগিদ দেন।
তাছাড়া ই-কমার্সে নতুন ও তরুণ উদ্যোক্তাদের কি করে ই-ক্যাবের মাধ্যমে আরও সাহায্য করা যায় তা ভেবে দেখতে তিনি আমাদের পরামর্শ দেন।
ই-ক্যাব ও মন্ত্রনালয় মিলে ই-কমার্স খাতের উন্নয়নে যৌথ ভাবে কিছু কর্মসূচী হাতে নেবার জন্য আমরা অনুরোধ জানালে তিনি ইতিবাচক মনোভাব ব্যক্ত করে এদিকে কিছু সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দিতে আমাদের বলেন। জনাব পলক বলেন যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে ই-কমার্স খাতে যা যা করা দরকার তা করতে তাঁর মন্ত্রণালয় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।
আমাদের সময় দেবার, ই-কমার্স খাতের সমস্যা সমূহ নিয়ে শোনার এবং সর্বোপরি এ খাতের সমস্যা সমাধানের এবং ই-কমার্স খাতের উন্নয়নে কাজ করার জন্য আন্তরিক আগ্রহ প্রকাশ করায় ই-ক্যাব থেকে আমরা মাননীয় প্রতিমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর সভাপতি রাজিব আহমেদের (আমি) নেতৃত্বে ই-ক্যাব প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন- সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল; যুগ্ম-সম্পাদক মীর শাহেদ আলী; অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল হক; ডিরেক্টর (গভর্ণমেন্ট অ্যাফেয়ার্স) রেজওয়ানুল হক জামী; ডিরেক্টর(কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স) সেজান সামস; ডিরেক্টর (ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স) মোঃ সুমন হাওলাদার; এবং ডিরেক্টর (কমিউনিকেশনস) আসিফ আহনাফ এবং নির্বাহী পরিচালক ফেরদৌস হাসান সোহাগ।